রুহুল আমিন সাদ।বন্ধু মহলে আড্ডার কেন্দ্রে থাকা এই তরুণ পড়ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মনোবিজ্ঞান বিভাগে।৩য় বর্ষ শেষ করার পরই পেলেন মেসা কম্যুনিটি কলেজে চাইল্ড সাইকোলজিতে একবছর পড়ার সুযোগ।জীবন নিয়ে স্বপ্ন অনেক;সার্টেইন কোন প্ল্যান নিয়ে নয় বিশ্বাস নিয়ে সামনে আগাতে চান।

অপরচ্যুনিটি জীবনে অনেক আসে, আমি মনে করি সেটাকে ঠিকঠাক চিনে নিয়ে নিজের সাথে স্যুটেড কিছু চুজ করাই মেইন

লিখেছেন...admin...জানুয়ারী 20, 2016 , 4:42 অপরাহ্ন

12509150_199738483710647_3391296585837919379_n

খোশগল্প.কম: হাই

সাদ: হ্যালো,গুড মর্নিং।

 

খোশগল্প.কম: মর্নিং,আমাদের এখানে কিন্তু এখন রাত।

সাদ: হ্যা জানি, আমি আপাতত এরিজোনাতে আছি এখানে এখন সকাল ৮:২৪।

 

খোশগল্প.কম: নিউ এনভায়রনমেন্ট।ফিলিংস কেমন?

সাদ: এখন তো ভালই আছি তবে প্রথমে অনেক কষ্ট হইছে মানায় নিতে।

 

খোশগল্প.কম: যেমন?
সাদ: এই টাইমিং এর ব্যাপারটা যার কারণে ঘুমে অনেক প্রব্লেম হত প্রথম দিকে।আবার ওয়েদারের একটা ব্যাপার আছে।এটা ডেজার্ট এরিয়া।তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রী সেলসিয়াস পর্যন্ত যায়।আর সারাদিন ওয়েদার স্টেবল থাকলেও রাতে বেশ ঠান্ডা পড়ে।

 

খোশগল্প.কম: কত দিন হলো গিয়েছেন?আর ফুড হেবিট?
সাদ: প্রায় ৬ মাস।আর ফুড হেবিটে প্রব্লেম বলতে এই পর্যন্ত হাতে গুণে ২০-২২ দিন মাত্র ভাত খাইছি।

 

খোশগল্প.কম: ক্রিস্টমাস,থার্টি ফাস্ট নিয়ে ওদিকে ক্রেজ অনেক।আপনিও সুযোগ পেয়ে গেলেন ওখানে থাকার সুবাদে।কীভাবে কাটালেন এই দুই অকেশন?
সাদ: অনেক এক্সাইটেড ছিলাম।ক্রিস্টমাসে অনেক গিফট পেয়েছি আর থার্টি ফার্স্ট ছিলাম শিকাগোতে।সব মিলিয়ে মনে রাখার মতো কিছু এক্সপেরিয়েন্স বলতে পারেন।

 

খোশগল্প.কম: আপনি তো স্কলারশীপ নিয়ে ওখানে গেছেন যতদূর জানি।
সাদ: জী আমি এখানে চাইল্ড সাইকোলজি পড়ছি।

 

খোশগল্প.কম: আগে থেকে ইন্টারেস্ট ছিল?
সাদ: অবশ্যই এবং ব্যাপারটা অনেক ইন্টারেস্টিং।এখন বাচ্চাদের সাথে ডিল করা অনেক ইজি হয়ে গেছে বলতে পারেন।

 

খোশগল্প.কম: আমরা স্বাভাবিক ভাবে স্কলারশীপ বলতে যা বুঝি এটাও কি এমন?

সাদ: না।এটা মাস্টার্স বা পিএইচডি স্কলারশীপের মত আপনাকে কোন ডিগ্রী দিবেনা।এইটা ফুল ফান্ডেড এবং দুইটা সেমিস্টার কোন নির্দিষ্ট ব্রাঞ্চে আপনাকে এখানকার কম্যুনিটি কলেজে পড়ার সুযোগ করে দিবে।এটা মেইনলি একাডেমীক এফিসিয়েন্সী বিল্ড আপ, ইংরেজিতে কম্যুনিকেশন স্ট্রং, লিডারশীপ মেক করা, ইন্টার্নশিপ সহ পুরো আমেরিকান কালচার এক্সচেঞ্জ করে।একমপ্লিশড টাইপ বলতে পারেন।

 

খোশগল্প.কম: ওখানে কাজ টা কেমন?
সাদ: এখানে একটা সেমিস্টার শেষ করলাম, তিনটা বেসিক কোর্স করলাম আর ল্যাবে বাচ্চাদের সাথে ইন্টার্নশীপ করলাম।প্রাক্টিকাল এক্সপেরিয়েন্স এর মতো।

 

খোশগল্প.কম: এই স্কলারশীপের তথ্যটা কীভাবে পেয়েছিলেন?
সাদ: আমার এক ফ্রেন্ড এর কাছে।তবে এটা ঠিক এখানকার পড়াশুনা আমাদের গতানুগতিক পড়াশুনা থেকে অনেক আলাদা।

 

খোশগল্প.কম: কবে নাগাদ ফিরবেন দেশে?
সাদ: মে এর ২০ তারিখের মধ্যে ইনশা আল্লাহ।

 

খোশগল্প.কম: অবসর কাটে কিভাবে ওখানে?
সাদ: হাইকিং, সাইকেলিং, সুইমিং।আর ইচ্ছা আছে এইবার মার্চে আশেপাশের কোন হিলে হাইকিং এ যেয়ে সুইমিং করব।

 

খোশগল্প.কম: ক্রিস্টমাস, থার্টি ফাস্ট এর কথা তো শুনলাম ১৬ই ডিসেম্বর এ কি করলেন?
সাদ: এখানে বাঙালী কম্যুনিটি আছে ১৬ তারিখ ওই কম্যুনিটি থেকে প্রোগ্রাম এরেঞ্জ করা হয়েছিল।ওখানেই ছিলাম।

 

খোশগল্প.কম: দেশের কোন জিনিস বেশি মিস করা হয়?
সাদ: ফ্যামিলি, ফ্রেন্ড, হল লাইফ এবং পুরো রাজশাহী শহরটা।

 

খোশগল্প.কম: ফিউচার প্ল্যান?
সাদ: নো সার্টেইন প্ল্যান এট অল।

 

খোশগল্প.কম: প্ল্যান ছাড়াই এগুচ্ছেন?
সাদ: হোপ নিয়ে আগাচ্ছি।অপরচ্যুনিটি জীবনে অনেক আসে সেটাকে ঠিকঠাক চিনে নিয়ে নিজের সাথে স্যুটেড কিছু চুজ করাই মেইন আমি মনে করি।

 

খোশগল্প.কম: ভালো বলেছেন এবং শুভ কামনা আপনার জন্য।
সাদ: থ্যাংক ইউ।

 

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0

মতামত