ছোটবেলা থেকেই জীবন নিয়ে অনেক সুন্দর স্বপ্ন দেখে এসেছেন।চেয়েছিলেন নিয়ম করেই সেগুলো পূরন হবে যেমনটি হয়ে আসছিলো। এ লেভেল,ও লেভেল পার করে পড়াশুনা শুরু করলেন নাম করা এক প্রাইভেট ভার্সিটি তে। সাথে সাথে ভাবনা চিন্তা গুলো গড়তেন চেনা কোন মুভি না উপন্যাসের চরিত্রে।  সব ঠিক থাকলেও হঠাত একটা মানুষের অনুপস্থিতি সেরকম নিয়ম করেই পালটে দেয় সবকিছু।

এমন কিছু সময় লাইফে আসে যখন এক সিচুয়েশন থেকে আরেক সিচুয়েশনে সুইচ করা ছাড়া লিটারেলি আর কোন ওয়ে থাকে না

লিখেছেন...admin...ফেব্রুয়ারী 22, 2016 , 11:14 পূর্বাহ্ন

ruman

খোশগল্প.কম: “ওয়েব ডেভেলপ” সহজভাবে এটাকে কিভাবে উপস্থাপন করবেন?

রুমান: ওয়েব ডেভেলপমেন্ট টার্ম টা হলো ওয়েবসাইট ডেভেলপ করা যার সাহায্যে কোনো ইন্ডিভিজুয়াল পারসন,ইন্সটিউট,কোম্পানী তাদের ইনফরমেশন স্প্রেড করতে পারে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড।

খোশগল্প.কম: কবে থেকে কাজ করছেন?

রুমান: ৮ মাস। আগেও ইনভলভ ছিলাম তবে এখন বেশি ইনভলভ।

 

খোশগল্প.কম: আপনার পড়াশুনার ব্যাকগ্রাউন্ড কি?

রুমান: আমি নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটি থেকে বিবিএ এমবিএ করেছি।

 

খোশগল্প: বিবিএ এমবিএ ব্যাকগ্রাউন্ড যেহেতু আপনি তো ইজিলি কর্পোরেট সেক্টরে যেতে পারতেন।সব বাদ দিয়ে এই সাইড টা কেনো?

রুমান: পড়াশুনা সেই কেন্দ্রিক থাকলেও আমার কখোনই ইচ্ছা ছিলো না ৮-৫ টার জব করার। সব সময় নিজের কিছু করার ইচ্ছে ছিলো। আর ফ্রিলান্সিং এখন “হট কেক” টাইপ তাই এই সেক্টরেই কিছু করছি তার চেয়েও বড় কথা আমার ভালো লাগছে। নিজের একটা আইটি ফার্ম দেয়ার ইচ্ছা আছে। সব কিছু ঠিক থাকলে হয়তো দিবো।

 

খোশগল্প.কম: “আইটি ফার্ম” ব্যপারটার সাথে সাইন্স ব্যাকগ্রাউন্ডের কোথাও না কোথাও লিংক আপ মনে হয়। আসলেই তাই কি?

রুমান: এমন কিছু সময় লাইফে আসে যখন এক সিচুয়েশন থেকে আরেক সিচুয়েশনে সুইচ করা ছাড়া লিটারেলি আর কোন ওয়ে থাকেনা। আইটির সাথে প্রত্যক্ষভাবে হয়তো সাইন্সের সাথে রিলেটেড যেটা হয়তো আমার নেই কিন্তু বিজনেস স্ট্রাটেজি গুলো চুজ করতে কিন্তু আমার ব্যাকগ্রাউন্ডেরই হেল্প নিতে হচ্ছে। আরো যেহেতু আমি নিজে ইন্টারেস্টেড একা কিছু করতে সেক্ষেত্রেও হেল্প হবে আমার বিশ্বাস।

 

খোশগল্প.কম: শুরুটা কিভাবে বা খোজ পেলেন কোথায়?

রুমান: বাবা ইন্তেকাল করার পর মাথায় অনেক রিসপন্সিবিলিটি চলে আসে। অনেক প্রব্লেম ফেস করতে হয়। তখন আমার ছোট বেলার ফ্রেন্ড তারিফকে সবকিছু খুলে বলি। ও আমাকে তার সাথে রেখে ওয়েব ডেভেলপিং টা শিখাচ্ছে। যেটুকু আজ পারি পুরোটাই তারিফের অবদান। নাহলে কিছু সম্ভব ছিলোনা।

 

খোশগল্প.কম: এটাকেই প্রফেশন করবেন?

রুমান: হ্যা তা তো করবোই। এছাড়া ফ্যামিলি বিজনেস কেও এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

 

খোশগল্প: ফ্যামিলি বিজনেস বলতে?

রুমান: আব্বুর একটা হ্যান্ডিকাফট আর ফার্নিচার ফ্যাক্টরি আছে। এটাই দেখবো।

 

খোশগল্প.কম: কতদিন ধরে দেখছেন কাজগুলো?

রুমান: প্রায় তিনবছর। আব্বু মারা যাওয়ার পর থেকে।

 

খোশগল্প.কম: “কিছু কিছু সিচুয়েশন” বলতে কি আপনার বাবার মারা যাওয়ার কথা বলছিলেন?

রুমান: হ্যা বাবার হঠাত চলে যাওয়া টা জীবনের সব থেকে কঠিন সময় আমার জন্য তার উপর মাথার উপর বাবার ছায়া না থাকায় নানা ধরনের প্রব্লেমে পরতে হয়েছে,এখনও পরি। এই সিচুয়েশন গুলোই আসলে জীবনের মোড় পালটে দিয়েছে আমার।

 

খোশগল্প.কম: আইডল কি সেই মানুষটাই?

রুমান: হ্যা আব্বু।জীবনে যতটুকু শিখেছি,দেখেছি সবটাই আব্বুর হাত ধরে। আমার জীবনে আব্বুই আমার সব কিছু।

 

খোশগল্প.কম: আপনার আব্বু কি অসুস্থ ছিলেন?

রুমান: হ্যা ছয় মাস অসুস্থ ছিলো আব্বু। তারপর মারা যান।

 

খোশগল্প.কম: ফ্যামিলি, বিজনেস, পড়াশুনা, নিজের কাজ এই সব মিলায় কখনো মনে হয়নি যে হয়তো আমি পারবোনা এতো রিস্পন্সিবিলিটি নিতে?

রুমান: খুব কঠিন লাইফ সত্যি বলতে। মাঝে মধ্যে মনে হয় যে পারবোনা। তাও লেগে আছি। হার মানতে চাইনি আসলে আব্বু কখনো শিখায়নি।

 

খোশগল্প.কম: জীবন বলতে কি বুঝাবেন এই সময়ে এসে?

রুমান: ছোটবেলা থেকেই মনে হত জীবনটা যেমন চাই ঠিক তেমন করে সাজায় নিবো খুব সুন্দর কোনো গল্পের মতো। কিন্তু যতই সময় যাচ্ছে জীবন ততই কঠিন হচ্ছে। আসলে নিজের মত করে এতো সহজে ভালো থাকা মনে হয় গল্প উপন্যাসেই যায়।

 

 

 

 

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0

মতামত