কথার সময় বলছিলেন “আমার কাছে আগামীকাল বলে কিছু নেই,যা হবে আজ,এখনই..কারণ কালকের সূর্য যে আমি দেখবোই এর কী নিশ্চয়তা আছে!! জীবন তো একটাই।” রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করছেন সাদিয়া ইসলাম স্বর্না।তার ভালো লাগার লিস্টটি অনেক বড়। তারমাঝে রয়েছে ঘোরা,ছবি তোলা, চোখে কাজল পড়া,গান শোনা ও গাওয়া,মাটির কাপে চা খাওয়া, পছন্দের মানুষগুলোর সাথে পাগলামি করতে,রুটিনবিহীন জীবন।

অভিনয় করেছেন দুটি শর্টফিল্মে। প্রিয় ব্যক্তিত্ব তার বাবা। তাকেই অনুসরন করতে চান জীবনে।

নিজের ইচ্ছা আর নীতির বিরুদ্ধে যাই না

লিখেছেন...admin...এপ্রিল 15, 2016 , 7:25 পূর্বাহ্ন

shr

খোশগল্প.কম: রাজশাহী ইউনিভার্সিটিতে কোন বিষয়ে পড়াশুনা করছেন?

স্বর্না: লোক প্রশাসন।

খোশগল্প.কম: ইচ্ছে কি এটা নিয়েই ছিলো? মানে সাবজেক্ট সিলেকশনে?

স্বর্না: না, ইচ্ছা ছিল অর্থনীতি বা মনোবিজ্ঞানে পরার। মনোবিজ্ঞানে হয় নি। কিন্তু সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সব সাবজেক্টই পেয়েছিলাম কারন মেধা তালিকায় চতুর্থ হয়েছিলাম। গণিত এ বরাবরই ভয় পেতাম, তাই আর অর্থনীতি নেই নাই।অনেক ভেবে লোক প্রশাসন।

খোশগল্প.কম: অর্থনীতি ঠিক আছে, তবে মনোবিজ্ঞানকে এতো এগিয়ে রাখার কারন রয়েছে কি?

স্বর্না: মানবিক বিভাগের ছাত্রী আমি। মনোবিজ্ঞান পড়েছি দু বছর। আগ্রহ টা ঐখান থেকেই।

খোশগল্প.কম: সাব্জেক্ট রিলেটেড ফিউচার প্লান রয়েছে কিছু?

স্বর্না: সাবজেক্ট রিলেটেড নেই। কারন সরকারি চাকরি কখনোই আমাকে টানেনি। ইচ্ছা আছে পড়াশোনা শেষ করে প্রাইভেট সেক্টরে কিছু করার।

খোশগল্প.কম: পড়াশুনার পাশাপাশি কিছু করা হয়?

স্বর্না: কম্পিউটার কোর্স।

খোশগল্প.কম: “বিশ্ববিদ্যালয় লাইফ” নিয়ে কিছু কথা…

স্বর্না: বিশ্ববিদ্যালয় আমার কাছে একটা স্বপ্নের নাম। স্বপ্নটা সত্যি না হলে জীবনে অনেক কিছুই জানতে পারতাম না, শিখতে পারতাম না। বুঝতাম না বাস্তবতা আসলে কতটা কঠিন। অনেক ধরনের মানুষের সংস্পর্শে এসেছি যা এই ছোট্ট জীবনে অনেক বড় পাওয়া। এমন কিছু শিক্ষক পেয়েছি যাদের না পেলে বুঝতেই পারতাম না শিক্ষকরাও এমন বন্ধুভাবাপন্ন হতে পারে। উপভোগ করছি জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত।

খোশগল্প.কম: হলে থাকছেন নিশ্চয়ই….

স্বর্না: চাপা হাসি নিয়েই বলতে হচ্ছে তৃতীয় বর্ষে এসে গনরুমে সিট হয়েছে। কবে নাগাদ রুমে হবে জানি না। আপাতত বাহিরেই আছি।

খোশগল্প.কম: এতোদিনে সবে গনরুম?

স্বর্ণা: জি…..নতুন একটি হল হয়েছে তাতে এখন এলোট দেয়া হয় নি। দিলে হয়তো আমাদের দুঃখ ঘুচবে।

খোশগল্প.কম: ব্যাপারগুলো প্রশাসনের নজরে আসা উচিত। আপনার ছোটবেলা স্কুল কলেজ কোথায় কেটেছে?

স্বর্ণা: বগুড়ায় ইয়াকুবিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক। আর ক্যান্ট পাবলিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক।

খোশগল্প.কম: বগুড়া থেকে রাজশাহী যেয়ে থাকা…ভিন্ন পরিবেশ,ভিন্ন মানুষজন। মানাতে পেরেছিলেন কেমন?

স্বর্না: রাজশাহীর মানুষ খুব সহজ সরল, কিন্তু আবহাওয়া খুবই খারাপ। যেমনই গরম তেমনই ঠান্ডা। পানিতে আয়রন। বিষয় গুলো এখনো ভোগান্তিতে ফেলে। তবে প্রথমে মনে হয়েছিল নাহ থাকতেই পারবো না।

খোশগল্প.কম: খোশগল্প.কম: মানিয়ে তো নিয়ে ফেলেছেন হয়তো……

স্বর্না: হ্যাঁ তা নিয়েছি।

খোশগল্প.কম: “তনু” এখন একটি আলোচিত বিষয়….রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পদক্ষেপ কি কি ছিল?

স্বর্না: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে মানব বন্ধন করা হয়েছে। আমাদের বিভাগ থেকেও আলাদা ভাবে মানব বন্ধন করেছি। বিচার চেয়ে প্রতিবাদ মিছিল বের করা হয়েছে।

খোশগল্প.কম: বিচার ওই মানব বন্ধন পর্যন্তই তো থেকে যায়….

স্বর্না: তা ছাড়া আর কি বা হয়। আজ আমরা তনুকে ভুলতে বসেছি।এখন আর মানব বন্ধনই বা কই। কোন বিচার তো দূরের কথা, সুস্পষ্ট ভাবে কোন উত্তরও পাইনি। কাল যে আমি বা আপনি তনু হবনা এর কি বা নিশ্চয়তা আছে।

খোশগল্প.কম: আমাদের সমাজে সবকিছুতেই এখনো মেয়েদেরই দায়ী করা হয়।চলাফেরা,পোশাক আশাক সবকিছুতেই,তনুর ব্যাপারেও তাই হয়েছে।কিছু বলুন এ ব্যাপারে….

স্বর্না: সবই বিকৃত মানসিকতার পরিচয়, আর কিছুই না। নিজেদের দূর্বলতা, কাপুরষত্ব ঢাকতেই এসব কথা। তনু তো কোন নাইট ক্লাব থেকে ফিরছিলো না, যথেষ্ট মার্জিত পোশাক পড়ত। তবে কেন আজ এই দশা। তারাই আজ এসব কথা বলে যারা আমাদের আজও সেই নিরাপত্তা দিতে পারে নাই। মানুষ হিসেবে নূন্যতম সম্মান টুকুও নয়।

খোশগল্প.কম: এটা নিয়ে কিন্তু সবার সরব উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে…..

স্বর্না: এটা নিঃসন্দেহে পজিটিভ। কিন্তু কতটুকু কি হবে এটাই দেখার বিষয়।

খোশগল্প.কম: ক্রাইমকারীরা বাচ্চাদেরও ছাড়ে না।জান্নাত তার আরেক উদাহরন।এটার কারনও কি বিকৃত মানসিকতা?

স্বর্না: তা ছাড়া আর কি। কোন সুস্থ মানুষের কাছে এমন কিছু নিশ্চয়ই কাম্য নয়।

খোশগল্প.কম: এগুলো থেকে বেরুনো কি তবে সম্ভব নয়?

স্বর্না: হয়তো সম্ভব। হয়তো না। কেন বলছি না একটু ব্যাখ্যা করি।গতকালই কথা হচ্ছিল দুই বন্ধুর সঙ্গে। তাদের একজন বলছিল, “এটা নিয়ে এত মাতামাতির কি আছে বুঝি না”; আতকে উঠলাম কি বলে, সঙ্গে থাকা আর এক বন্ধু বলে উঠল “বন্ধু,যার যায় তারই যায়। যদি এটা আমার বোনের সাথে হত!” একটু ভাবুন একজন বিশ্ববিদ্যালয় পড়া ছেলে যদি এভাবে ভাবে, অল্প শিক্ষিত লোক এটাকে কিভাবে দেখছে। এরাও কি সমান ভাবে দায়ী নয়?? এটা কি ধর্ষকদের মৌন সমর্থন দিচ্ছে না।

খোশগল্প.কম: “মেয়ে” তারা মেয়েই,  মানুষ না, চিন্তা হয়তো এমন।

স্বর্না: মানুষের ডেফিনিশন এমন হয়ে গেলে কি আর বলার বলুন।

খোশগল্প.কম: আপনি তো রিসেন্টলি একটা শর্টফিল্মে অভিনয় করেছেন।অভিজ্ঞতা বলুন…

স্বর্না: ভালো, খারাপ না। এবারের কাজ টা ছিল “মাকে” নিয়ে। সবার অনেক ভালো ফিডব্যাক পেয়েছি।

খোশগল্প.কম: “এবার” বলতে? তাহলে কি আগেও কাজ করেছেন?

স্বর্না: হ্যাঁ, এর আগে আরও একটি করেছি।

খোশগল্প.কম: মডেলিং এ ইচ্ছা রয়েছে?

স্বর্না: নাহ। আমি সাধারণ মানুষ। অতশত শখ নেই।

খোশগল্প.কম: সাধারন মানুষের শখ থাকতে নেই?

স্বর্না: ইচ্ছা যদিও থাকে, তবুও বলবো কিছু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। যা আমাকে বাধা দেবে।

খোশগল্প.কম: বাধা পেরুতে চান না তবে?

স্বর্না: কমতি তা নিজের ই যে। অন্য কোন বাধাকে ভয় পাই না। আমার পা সুন্দর না। অনেক দাগ আছে। অনেক বড় বড় ডাক্তার দেখিয়েছি লাভ হয় না। এসব মডেলিং, নাটক, এ যারা কাজ করবে তাদের এমন হওয়া কতটুকু সাজে বলুন তো? পায়েল অনেক পছন্দের। কিন্তু কখনো কিনিনি নিজের জন্য।

খোশগল্প.কম: শারিরীক সৌন্দর্য তো সামান্য,মনের সৌন্দর্যইই কি বেশি নয়?

স্বর্না: তা বটেই। কিন্তু এই কাজের ক্ষেত্রে খুব একটা না।

খোশগল্প.কম: এই কাজে পরোক্ষ ইনভলভমেন্টও কিন্তু অনেক ইন্টারেস্টিং জানেন নিশ্চই...

স্বর্না: সান্ত্বনা দিচ্ছেন!

খোশগল্প.কম: তা অবশ্যই নয়।ইচ্ছা শক্তি অনেক বড় কিছু।শুধু হাল না ছাড়তে বলছি।

স্বর্না: হাল ছাড়ি না। সাধ্যের মধ্যে থাকলে সবই করি।মানুষকে মুখের উপর না বলতে পারি না।জীবনের ব্যস্ততাও উপভোগ করি।

খোশগল্প.কম: নিজেকে কিভাবে মূল্যায়ন করেন?

স্বর্না: মুল্যায়ন করি না।। ওটা আমার কাজ না। নিজেকে সম্মান করি। নিজের ইচ্ছা আর নীতির বিরুদ্ধে যাই না। যা ভাল লাগে করি, বেশ আছি।

খোশগল্প.কম: জীবনটা তো তাহলে এভাবেই সুন্দর তাই না?

স্বর্না: প্রাপ্তি অপ্রাপ্তির হিসেব যদি না কষি তাহলে এভাবেই সুন্দর, অনেক সুন্দর।

খোশগল্প.কম: খোশগল্পকে কিছু বলবেন?

স্বর্না: ভালো লাগলো। অনেক কিছু ফ্ল্যাশ ব্যাক হচ্ছিল। না বলা কথাগুলোও বলতে পারলাম। সত্যিই ভালো লাগলো।

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0

মতামত