নিজেকে নিয়ে যেমন বলতে চাননা কিছুই ঠিক তেমনি ফেসবুকের নীল সাদা তেও ‘about’ জায়গাটা তেমনই ফাকা। বলছিলাম মালীহা সুলতানা ওহীর কথা। পছন্দ করেন ঘুরে বেড়াতে, তার চেয়ে বেশি এক্সপেডিশনে। এর মধ্যেই সেন্টমার্টিন থেকে পায়ে হেটে রওয়ানা হোন ছেড়াদ্বীপের উদ্দেশ্যে। তার মতে এটা কেবল শুরু। আরো অনেক পথ বাকি এই এক্সপেডিশনেই। পড়াশুনা যদিও তার সাংবাদিকতায়। তো তার ও ইচ্ছা ভবিষ্যতে ট্যুরিষ্ট বিটের সাংবাদিক হওয়ার। তবে উল্লেখ্য ভবিষ্যতে বাংলাবান্ধা পর্যন্ত পায়ে হেঁটে রওনা দেয়ার ইচ্ছা রয়েছে তার।

পায়ে হেঁটে পথ পাড়ি দিতে পারা একটা নেশার মতো

লিখেছেন...admin...মে 12, 2016 , 1:19 অপরাহ্ন

oh

খোশগল্প.কম: expedition বলতে কি বুঝেন আসলে?

ওহী: অজানাকে জানার উদ্দেশ্যে নেমে পড়া।

খোশগল্প.কম: কোন স্টেপ কি ইতিমধ্যে নেয়া হয়েছে?

ওহী: এই বছর সেন্টমার্টিন ঘুরতে গিয়ে বন্ধুরা হঠাৎ করে পরিকল্পনা করে হেঁটে ছেড়াদ্বীপ যাবার।

খোশগল্প.কম: পরিকল্পনা সফল হয়েছিলো?

ওহী: আমরা 17জন রওনা দিয়েছিলাম সকাল 9:30এর কিছু পরে. শেষ পর্যন্ত যখন আমরা পৌঁছাই তখন আমরা মাত্র 5 জন ছিলাম.এবং মেয়েদের মধ্যে আমি একমাত্র।

খোশগল্প.কম: পৌছাতে কতক্ষন লেগেছিলো সবমিলিয়ে?

ওহী: আনুমানিক 12:30 হবে. হোটেলে যখন ফিরেছি তখন প্রায় 4টা বাজে।

খোশগল্প.কম: আপনি বলছিলেন আপনি একা ছিলেন শেষ পর্যন্ত তবে শুরুর ১৭ জনে আর কোন মেয়ে কি ছিলো?

ওহী: হুম 5জন মেয়ে ছিল 17 জনের মধ্যে।

খোশগল্প.কম: পরে একে একে মেয়েরা যে সরে যাচ্ছিলো সেই সময় ও কি মনে হয়েছিলো আপনি পারবেন?

ওহী: এটা আমার কাছে চ্যালেঞ্জ ছিল যে আমাকে পারতেই হবে. বিএনসিসি এর একজন ক্যাডেট কখনো তার লক্ষ্য থেকে সরতে পারে না. মজার কথা হলো আমাদের দলের মধ্যে আমি প্রথমে পৌছাই।

খোশগল্প.কম: বিএনসিসি করেন কোন ক্লাস থেকে?

ওহী: ইউনিভার্সিটিতে আসার পরেই।

খোশগল্প.কম: এই প্রথম কি হেঁটে এতোক্ষানি পার করা?

ওহী: জি, ভবিষ্যতে আরো বড় লক্ষ্য নেবার ইচ্ছা আছে।

খোশগল্প.কম: যেমন?

ওহী: ঢাকা থেকে বাংলাবান্ধা পর্যন্ত হেঁটে যাওয়া বা কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত সমুদ্রের তীর ধরে হেঁটে যাওয়া।

খোশগল্প.কম: একজন মেয়ে হিসেবে প্রথম এক্সপেডিশনে কোন সমস্যার সামনে পরেছিলেন?

ওহী: নাহ.তবে ছেঁড়া দ্বীপ সবার প্রথমে পা রাখার পর যে আনন্দের শিহরন বয়ে যায় নিজের মধ্যে তা পরবর্তী লক্ষ্য অর্জনে অনুপ্রেরনা হিসেবে কাজ করবে।

খোশগল্প.কম: সব কিছু বাদ দিয়ে দুই “পা” এর ওপর এতোক্ষানি নির্ভরতা কেনো জানতে পারি?

ওহী: শুধু দুই পা ভরসা করে ভ্রমণ করি তা নয়।পায়ে হেঁটে পথ পাড়ি দিতে পারা একটা নেশার মতো।অনেকটা নিজের কাছে নিজের ক্ষমতার পরীক্ষা দেয়া।প্রতিবার নিজেকে আগেরবারের চেয়ে ছাড়িয়ে যাবার চেষ্টা থাকে।

খোশগল্প.কম: ফিজিক্যাল কোন সমস্যায় কি পড়তে হয়েছিলো?

ওহী: নাহ আল্লাহর রহমতে কোন সমস্যা হয়নি। তাছাড়া একটানা তো হেঁটে যাই না, ক্লান্ত লাগলে বিশ্রাম নেই. তারপর আবার শুরু করি। এছাড়া বিএনসিসি এর করা ট্রেনিং ক্যাম্পগুলো আমাকে টিকে থাকতে সাহায্য করেছে।

খোশগল্প.কম: আচ্ছা নেক্সট টার্গেট বাংলাবান্ধা বলছিলেন…এটার নির্দিষ্ট কোন কারণ কি রয়েছে?

ওহী: নাহ নিজের ক্ষমতার পরীক্ষা নেবার জন্য এই টার্গেট নেয়া।

খোশগল্প.কম: ফ্যামিলি সাপোর্ট?

ওহী: বাবা একদমই পছন্দ করেন না। মা বাধা দিলেও শেষ পর্যন্ত মেনে নেন।

খোশগল্প.কম: এক্সপেডিশনের এক্ষেত্রে অনুপ্রেরনার জায়গা কোনটি?

ওহী: Man vs wild, man women wild,dual survivour এই প্রোগ্রামগুলো দেখে ইচ্ছে হতো বের হয়ে পড়ি। এছাড়াও DUTS এর সদস্য হবার সুবাদে বড় ভাইয়া আপুদের বিভিন্ন ভ্রমণবিষয়ক অভিঞ্জতা শোনার সুযোগ হয়।এগুলোও আমাকে অনুপ্রেরণা যোগায়।

খোশগল্প.কম: DUTS বলতে?

ওহী: Dhaka university tourist society.

খোশগল্প.কম: activity কি বুঝিয়ে বলা যায় অর্গানাইজেশনের?

ওহী: এটি একটি ভলান্টারি অর্গানাইজেশন।আমরা বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে ট্যুর অর্গানাইজ ও explore করে থাকি।এছাড়া বিভিন্ন national day,world mountainary day,world environment dayতে অনুষ্ঠান আয়োজন করে থাকে।সামনে Explore bangladesh নামে একটি workshop আয়োজনের প্রস্তুতি চলছে।

খোশগল্প.কম: বাহিরে ট্যুরের ব্যবস্থা রয়েছে?

ওহী: ব্যবস্থা এই কমিটির করার কথা চলছে।সামনে বাংলাদেশের বাইরেও DUTS যাবে বলে আশা করছি।

খোশগল্প.কম: explore Bangladesh নিয়ে ডিটেইলসে কিছু শুনতে চাচ্ছিলাম….

ওহী: ভ্রমণে যাবার সামর্থ ও সুযোগ সবার সবসময় আসেনা। আবার কোথাও ঘুরতে গেলে কিভাবে যাবে কি কি নেয়া উচিত কোথায় কোথায় যাবে এইসব কথা মাথায় রেখেই এই workshop এর আয়োজন। Workshop শেষে পরীক্ষা ও সার্টিফিকেটের ব্যবস্থা থাকবে।

খোশগল্প.কম: workshop হচ্ছে কোথায়?

ওহী: মুনির চৌধুরী অডিটোরিয়ামে করার কথা চলছে।

খোশগল্প.কম: আচ্ছা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন বিষয়ে পড়ছেন?

ওহী: গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা।

খোশগল্প.কম: এটাতেই পড়ার ইচ্ছা ছিলো শুরু থেকে?

ওহী: নাহ ব্যবসায় শিক্ষার ছাত্রী ছিলাম.আমার Accounting and information system এ পড়ার ইচ্ছা ছিল.

খোশগল্প.কম: এই ইচ্ছা থেকে বেরিয়ে এসে এখানে কোপ করা কি সহজ?

ওহী: প্রথম কয়দিন মন খারাপ থাকলেও এই বিভাগের অসাধারণরকমের মিশুক শিক্ষক ও বন্ধুদের পেয়ে এখন নিজেকে ভাগ্যবান বলে মনে হয়।

খোশগল্প.কম: তাহলে ভবিষ্যতে ওহী কে সাংবাদিক হিসেবে দেখা যাবে?

ওহী: হুম আশা করা যায়।

খোশগল্প.কম: একজন মেয়ে হিসেবে কিন্তু সাংবাদিকতা পেশার রাস্তা বেশ বন্ধুর……

ওহী: এখনতো সাংবাদিকতায় মেয়েদের উপস্থিতি বাড়ছে। বন্ধুর হলেও তারা এখন ভয়কে জয় করতে জানে।

খোশগল্প.কম: তো সেই হিসাবে ধরতে গেলে আপনাদের কাজের সেক্টর তো অনেক…

ওহী: কি ধরনের কাজের সেক্টরের কথা বলছেন?

খোশগল্প.কম: জব কেন্দ্রিক।

ওহী: জি সুযোগতো রয়েছেই. আজকের মেয়েরা সেইভাবে নিজেদের যোগ্য করে গড়ে তুলছে.

খোশগল্প.কম: DUTS থেকে ট্যুরে গিয়েছিলেন শুনলাম!!

ওহী: জ্বি ২০১৫-১৬ কার্যকরী কমিটির ট্যুর ছিল এটি। কমিটির ১৫ জন ৩ রাত 2দিনের জন্য সিলেটে গিয়েছিলাম।

খোশগল্প.কম: এক্সপেরিয়েন্স শেয়ার করার মতো?

ওহী: বৃহস্পতিবার রাতে আমরা ঢাকা থেকে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। এবারের সিলেট ভ্রমণে রাতারগুল ও বিছনাকান্দি যাবার সুযোগ হয়। আমরা জানি যে বিশ্বে 22টি সোয়াম্প ফরেস্ট রয়েছে যার মধ্যে এশিয়ায় আছে ২টি। একটি শ্রীলংকায় আরেকটি বাংলাদেশ। রাতারগুল বনে যখন আমরা প্রবেশ করি তখন সেখানের সুনসান নীরবতা পথ অতিক্রম করে আসার ক্লান্তিকে ভুলিয়ে দেয়। এই নীরবতা ভেঙে মাঝে মাঝে শোনা যাচ্ছিল নাম না পাখির ডাক , পোকার ডাক , বৈঠার ছলাত ছলাত শব্দ. রাতারগুল থেকে বিছনাকান্দিতে যখন আমরা পৌছাই তখন দুপুর প্রায় শেষ. বিকেলে পাহাড়ের পাদদেশে ঝর্ণার ঠান্ডা পানিতে সূর্যাস্ত দেখতে দেখতে স্নান করার অভিজ্ঞতা বহুদিন মনে রাখার মত।

খোশগল্প.কম: বাহ। ট্যুরের কোন উদ্দেশ্য ছিলো নিশ্চয়ই!

ওহী: শুধুমাত্র কার্যকরী কমিটির ট্যুর ছিল এটি। কমিটির সদস্যরা নিজেদের মধ্যে সময় কাটানোর জন্য এই ট্যুরের আয়োজন করা হয়।

খোশগল্প.কম: ফিউচার প্ল্যান কি?

ওহী: Tourist beat এর সাংবাদিক হওয়া.এর মাধ্যমে বাংলাদেশের পর্যটন খাতকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরা আমার লক্ষ্য।

খোশগল্প.কম: হঠাৎ এভাবে ভাবনা?

ওহী: কারণ আমি মনে করি নিজের দেশের জন্য কিছু করতে চাইলে নিজের অবস্থান থেকে তা করা সম্ভব।

খোশগল্প.কম: নিজের সম্পর্কে ধারণা কেমন নিজের?

ওহী: খুব কঠিন প্রশ্ন। সত্যি বলতে নিজেকে নিয়ে জাজ করা যায় এমন ভাবে ভাবার সুযোগ আসেনি বা হয়তো আমিই পাইনি।

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0

মতামত