টিএসসি দিয়ে সামনে ঢুকলেই বারান্দার কোল ঘেঁষে একদল তরুণ বসে থাকতে দেখা যায়।সেখান থেকেই ভেসে আসছে পরিচিত কিছু ফোক গান আর সেই আসরের মধ্যমণি হয়ে আছে এক মেয়ে, নাম দোলা।পড়ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর সংগীত বিভাগে।প্রচন্ড প্রাণোচ্ছল এবং বন্ধুপরায়ণ একজন মানুষ, ভালোবাসে জীবনকে এবং পাগলের মত আঁকড়ে ধরে রয়েছে আরেকটি নেশা তা হল ফিল্মমেকিং।যার হাতেখড়ি হতে যাচ্ছে আর কিছুদিনের মধ্যেই।

হয় না, হচ্ছে না বলে কোন শব্দ নেই, চেষ্টা করলে কাজ হবেই হবে।

লিখেছেন...admin...জানুয়ারী 21, 2016 , 4:57 অপরাহ্ন

12552710_196106577407171_4447023279054628944_n

খোশগল্প: কেমন আছেন?

দোলা: ব্যস্ত আছি।মাত্র সারাদিন পর বাইরে থেকে আসলাম।

 

খোশগল্প.কম: ব্যস্ততা আপাতত কি নিয়ে?
দোলা: তেমন কিছুইনা আবার বলতে গেলে অনেক কিছু।হা হা হা….

 

খোশগল্প: পরিবার মানে দোলার ভিত্তি যদি জানতে চাই
দোলা: ফরিদপুরে।তিনবোন, মা প্রাইমারি স্কুলের হেডমিস্ট্রেস অার বাবা স্থল বন্দরের কাস্টমস ইনচার্জ।ছোট বোন এইটে পড়ে।বড় বোন ব্যাংকে চাকরি করে।আমি আমাকে বুঝতে এই মানুষ গুলোকেই বুঝি।

 

খোশগল্প.কম: মিউজিক নিয়েই যেহেতু পড়া তো সেই মিউজিক নিয়ে সামনে কিছু করার ইচ্ছা আছে?

দোলা: না।গান নিয়ে নিজের গেয়ে কিচ্ছু করার ইচ্ছা নাই।তবে, মিউজিক্যাল সিনেমা বানানোর প্ল্যান অাছে।মিউজিশিয়ান দের লাইফস্টাইল, বা তাঁদের ফিলোসফি এগুলো নিয়ে কাজ করবো।

 

খোশগল্প.কম: গানটা কি ছোট থেকেই শেখা হত?
দোলা: হ্যাঁ। পাঁচ বছর থেকে গান শিখি।অার ডিরেকশন বা নাটক, সিনেমা বানানোর বিষয়টা ভার্সিটিতে ওঠার পর থেকে।হুট করেই মনে হলো অার পরে মুক্তিযুদ্ধের নাটক টা বানাইছি।

 

খোশগল্প.কম: “নাটক বানাইছি” কথাটা শুনতে যতটা সোজা আদৌ তো তা নয়।
দোলা: না কখোনোই না।অনেক হার্ড ছিলো।অনেক বেশি ভুগতে হইছে হয়তো কয়েক জায়গায় তবে এখন আর কিছু মনে নেই যখন ভাবি কাজ টা আমার।

 

খোশগল্প.কম: আপাতত তাহলে নাটক প্যাশন।তবে সামনে কি এটাই প্রফেশন হতে যাচ্ছে?আর যে বাঁধা গুলোর কথা বলছিলেন ওগুলো কেমন?
দোলা: হ্যাঁ। এটাই প্রোফেশন করবো বলে মনস্থির করছি।সমস্যা বলতে একা একটা মেয়ে পুরো একটা পুরুষ ইউনিট নিয়ে কাজ করা, সব ম্যানেজ করা, পরে এডিট করা অার তার উপরে প্রথম কাজ।সো, অনেক হার্ড ছিলো।বাট ফাইনালি কাজটা সাকসেসফুলি শেষ করলাম অারকি।তবে, কো অপারেশন চাইলে পাওয়া যায়।

 

খোশগল্প.কম: কো অপারেশনের কথা বলছিলেন।সেটা আপনি কেমন পেয়েছেন?
দোলা: জোশ।অামার প্রত্যেকটা ফ্রেন্ড, বাবা মা, অার পুরো কলাকুশলীরা কোথাও বুঝতে দেয়নি যে অামি মেয়ে।

 

খোশগল্প.কম: পুরো নাটকে ফান্ডিং এর একটা ব্যাপার ছিল………
দোলা: একটা প্রোডাকশন হাউজ অাছে।তো,তারা প্রফেশনালি প্রডিউস করে।তাদেরকে গিয়ে চিত্রনাট্যটি দেখানোর পরে,তারা রাজি হলো।অার পরে,কাজ শুরু করলাম।অার অামার পুরোনো কিছু ছোটখাটো কাজ দেখে তারা অার দ্বিমত করেনি।

 

খোশগল্প.কম: তারমানে পুরো ব্যাপারটি আপনার অনুকূলেই ছিলো বলা যায় কিন্তু আপনার মতো অনেকেই হয়তো এই ব্যাপারে প্যাশনেট কিন্তু হয়তো কোন ওয়ে পাচ্ছে না তাদের জন্য কি বলবেন?
দোলা: হ্যাঁ।হয় না, হচ্ছে না বলে কোন শব্দ নেই ।চেষ্টা করলে কাজ হবেই হবে।তবে,চর্চাটা প্রয়োজন অার হচ্ছে লেগে থাকা।আর কাজের মান অনেক বড় একটা ব্যাপার ওদিকেই সর্বোচ্চ নজর দেয়া উচিত।আমি মনে করি পরিশ্রম করলে সেই ফল পাওয়া যায়।অবশ্যই পাওয়া যায়।

 

খোশগল্প.কম: কাস্টিং এ কারা ছিলো??
দোলা: অর্ষা, সাঈদ বাবু, মোমেনা চৌধুরী।

 

খোশগল্প.কম: “অর্ষা” ইন্ডাস্ট্রিতে জনপ্রিয় একজন।তার সাথেই প্রথম একটা কাজ।এক্সপেরিয়েন্স কেমন ছিল?
দোলা: ভালো ছিলো।অাপু জোশ।নতুন নির্মাতা অামি।সে হিসেবে তিনি ভীষণ হেল্পফুল ছিলেন।ভীষণ।

 

খোশগল্প.কম: আপনি নতুন ডিরেক্টর হিসেবে সেখানে মনে হয়নি নাটক এও নতুন কাউকে আনা দরকার?
দোলা: অানছি তো।তৃষা সুলতানা, জাহাঙ্গীরনগর এর।গভর্নমেন্ট পলিটিক্সের একটা মেয়ে, সে বান্ধবী অামার।নবাগত হিসেবে তৃষা খুবই নাইস ছিলো অাসলেই।

 

খোশগল্প.কম: নাটকের লোকেশন কোথায়?
দোলা: লোকেশন জাহাঙ্গীরনগর এর পেছনে গেরুয়া গ্রামে।

 

খোশগল্প.কম: কি মনে হয় আমাদের এটেনশন এখন বাংলা চ্যানেল গুলো ধরে রাখতে পারছে??
দোলা: এটেনশন ধরে রাখবে কেমনে?ভালো কাজ হোক অার হচ্ছে তবে অ্যাড কমুক।একটা কথা ভালো কাজ মানেই কঠিন কাজ না।সাধারণ মানুষের বুঝের ভেতরে হোক কাজগুলো আরকি।অার অ্যাড হোক তবে গুছিয়ে।এতো র‍্যান্ডম না যে কি দেখছিলাম তাই ভুলে যাই।

 

খোশগল্প.কম: কাজ শেষ করতে কতদিন লাগছে টোটাল?আর মজার কোন এক্সপেরিয়েন্স?
দোলা: তিনদিন লাগছে।হ্যাঁ আছে, প্রথম দিন শ্যূটিং এর পরে অামি তেরো বার বমি করে শয্যাশায়ী হইছিলাম।

 

খোশগল্প.কম: আর এপ্রিসিয়েশন?
দোলা: এপ্রিসিয়েশন নতুন কাজ হিসেবে ব্যাপক। অার প্রচার এখনো হয়নি।তবে,শীঘ্রই হবে।

 

খোশগল্প.কম: আইডল কাকে মানেন?
দোলা: মডেল হচ্ছেন সত্যজিৎ রায়।অার অবদান মায়ের।কাজ শুরুর প্রথম বিশ হাজার টাকা মায়ের কাছ থেকে পাওয়া আর অারেকটা ইন্সিপিরেশন এর কথা বলি? রিফাত।অামার ভালো বন্ধু,প্রেমিক এবং সাহসদাতা অার হচ্ছে নাঈম অামার বেস্ট ফ্রেন্ড অার সূচনা।এই কয়টা নাম অামাকে এই জায়গা চেনাইছে।আর হ্যা সবচেয়ে বড় ইন্সপিরেশন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0

মতামত