নাহিদ হাসান দ্বীপ, কৈশোরে যে সময়টাতে কিছু হবার কথা মানুষ ভাবে তখন থেকেই ভেবে রেখেছেন স্বাধীন ভাবে কিছু করার কথা। এখন পড়ছেন সম্মান প্রথম বর্ষে। উদ্যোক্তা হবার প্রস্তুতি শুরু করেছেন ইতঃমধ্যেই। তার উদ্যোগের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে শুনি খোশগল্পে……

সবার সাফল্যের নিজের একটা ওয়ে আছে, প্ল্যান আছে

লিখেছেন...admin...নভেম্বর 25, 2016 , 3:34 অপরাহ্ন

13237617_189464941448455_7517206593393548090_n

নাহিদ হাসান দ্বীপ, কৈশোরে যে সময়টাতে কিছু হবার কথা মানুষ ভাবে তখন থেকেই ভেবে রেখেছেন স্বাধীন ভাবে কিছু করার কথা। এখন পড়ছেন সম্মান প্রথম বর্ষে। উদ্যোক্তা হবার প্রস্তুতি শুরু করেছেন ইতি মধ্যেই। তার উদ্যোগের সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে শুনি খোশগল্পে……

 

 খোশগল্প.কম: প্রথমে তোমার পরিচয় দিয়ে শুরু করি?

নাহিদ: আমার নাম নাহিদ হাসান দ্বীপ। আমি ঢাকা কলেজে পরিসংখ্যান বিভাগে অনার্স ফার্স্ট ইয়ারে পড়ছি। গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল। জয়েন্ট ফ্যামিলি, বাবা বিজনেস করেন। দুই ভাই, ছোট ভাই ভার্সিটি এডমিশন টেস্ট দিচ্ছে।

 

খোশগল্প.কম: এর আগে কোথায় পড়তে?

নাহিদ: ইন্টারমিডিয়েট ময়মনসিংহ আনন্দমোহন কলেজে।

খোশগল্প.কম: তোমার এইচ.এস.সি ব্যাচ কত?

নাহিদ: ’১৪ ব্যাচ। একবছর গ্যাপ দিয়ে তারপর ভর্তি হয়েছি। প্রথমে আমি আইইএলটিএস করতে চেয়েছিলাম, এইজন্য ঐ বছরটা আমার গ্যাপ গিয়েছে। তারপরে ’১৫ এ এসে ভর্তি হয়েছি।

খোশগল্প.কম: আইইএলটিএস দিয়েছিলা?

নাহিদ: না, কিছুদিন কোচিং করে ছেড়ে দিয়েছি।

খোশগল্প.কম: কেন? ছেড়ে দিলা কেন?

নাহিদ: কজ, ভার্সিটি আর আইইএলটিএস দুইটাই শুরু করেছিলাম। পরে কোনটাই আসলে হয় নাই। একবার ভাবছি যে বাইরে চলে যাব, কিন্তু পরে মনে হইছে ফ্যামিলি ছেড়ে চলে যাওয়াটা ভাল লাগছিল না নিজের কাছে।

খোশগল্প.কম: তাহলে সেটা আগে মনে হয় নি?

নাহিদ: না, আগে আসলে ঝোঁকে মনে হইছে এই দেশে পড়াশোনা করবো না, বাইরে পড়বো। পরে মনে হইছে ফ্রেন্ডরা সবাই দেশে থাকবে তাহলে আমি একা যেয়ে কি করবো। পরে তো ইউনিভার্সিটিও হইলো না, অইটাও না।

খোশগল্প.কম: তোমার স্পেসিফিক কোথাও পড়ার ইচ্ছা ছিল?

নাহিদ: না, আমার কোন ইচ্ছা একদমই ছিল না।

খোশগল্প.কম: কেন? নরমালি তো পড়ালেখার সময়টাতে ইনস্টিটিউশনাল ফ্যাসিনেশন, বা প্রফেশনাল ইন্টারেস্টের জায়গা থাকে

নাহিদ: না, অইরকম কোন ইচ্ছা আমার কখনোই ছিল না। ছোটবেলা থেকেই আমার প্ল্যান আমি বিজনেস করবো। এজন্য আমি পারফেক্ট একটা প্লেস চাইছি, সময় চাইছি। যেখান থেকে আমি সবকিছু গোছাইতে পারবো। নিজেকে টাইম দিতে পারবো, চার বছরে আমি যা হইতে চাই সেটার প্রিপারেশন আমি এখান থেকে নিতে চাইছি। এখন ঢাকা কলেজে ভর্তি হয়েছি, আমি সেই প্রিপারেশনটা এখন নিতে পারবো।

খোশগল্প.কম:চাকরি না কেন?

নাহিদ: এটা আমার ছোট থেকেই ভালা লাগে না। কারো অধীনে থেকে কাজ করা এটা আমার ভালোই লাগে না। সবাই কিন্তু চায় নিজের একটা ফার্ম থাকুক, যে ইঞ্জিনিয়ার সেও চাইবে নিজের একটা প্রতিষ্ঠান হোক। আমি যাই করি, নিজে করতে চাই, শ্রম দিতে চাই, স্বাধীনভাবে।

খোশগল্প.কম: তুমি হিমালয় ভাইকে কীভাবে চেন?

নাহিদ: হিমালয় ভাই’র সাথে ফেসবুকে ফ্রেন্ড হিসেবে আছি দু’বছর থেকে। হিমালয় ভাই উদ্যোক্তা, বিজনেস গ্রোথ, বিজনেস রিলেটেড যে পোস্টগুলা দেয় ওগুলা আমার খুব ভাল লাগতো। আর রিসেন্টলি উনি নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ‘হিউম্যান ল্যাব বিডি’ শুরু করছেন,  তো এই জায়গাটায় আমি ওনার সাথে যোগাযোগ করতে চাই, যোগাযোগ রাখতে চাই।

খোশগল্প.কম: তুমি এই যোগাযোগটা কীভাবে রাখতে চাচ্ছো?

নাহিদ: হিউম্যান ল্যাব বিডি একটা নতুন প্রতিষ্ঠান, সে যেহেতু বিজনেস এর জায়গা গুলো ভাল জানে তাহলে আমি যদি তার সাথে থাকি, আর আমি কিন্তু বিজনেস জানি না; টিম ম্যানেজমেন্ট, কমিউনিকেশন কীভাবে করবো, এডভার্টাইজিং স্কিল, কীভাবে কনজ্যুমারকে সন্তুষ্ট করতে পারবো এগুলা তো আমি এক বারেই পারবো না, আস্তে আস্তে ওনার সাথে থেকে আমি প্র্যাক্টিসড হইতে চাই।আমি বিশ্বাস করি আমি এখানে এগুলো শিখবো।

এই যেমন আমি আজকে ইন্টারভিউ দিতে আসছি, একদম আনইজি ফিল করতেছি, কিন্তু একটা অভিজ্ঞতা তো হইলো। আমি এটা আগ্রহ করেই করছি। হ্যাঁ, দিলাম একটা ইন্টারভিউ! আমার কমিউনিকেশন স্কিল ভাল না, এইটাকে বাড়াইতে চাই।

খোশগল্প.কম: তোমার নিজের উদ্যোগটা কখন থেকে শুরু করতে চাও?

নাহিদ: আমি এটা অলরেডি শুরু করে দিয়েছি। আমি হিসেব করে দেখলাম যে সিজনাল বিজনেসে ইজিলি প্রফিটেবল, আর বড় করে কিছু শুরু করতে প্রাইমারি একটা ক্যাপিটালও আমার দরকার। তো আমি যদি সুপার শপ গুলাতে কাঁচামাল সাপ্লাই দিয়েও শুরু করি তাহলেও আমার শুরু হবে। তারপরে ঢাকা সিটিতে পানির বিজনেসে ভালো প্রফিট। আবার যদি আমি আমার বাড়িতে করি তাহলে পুকুর নিতে পারি। এইভাবেই হবে। আমি শুরু করি না কেন! একটা স্টার্ট করলে আরেকটা আপনা আপনিই শুরু হবে। সবার সাফল্যের নিজের একটা ওয়ে আছে, প্ল্যান আছে। ঐ রাস্তাটা মানুষ নিজে করে নেয়।

আমার ভাললাগে মূলত এক্সপোর্ট-ইমপোর্টের বিজনেস। আমি এখন পর্যন্ত খুব বেশি কিছু জানি না তাও ভাললাগে।

এইজন্যেই প্রথমে পানি দিয়েই শুরু করবো। কারণ, এটা কম পরিসরে শুরু করা যায়, শুরুতে দৌড়াদৌড়ি শুরু করলে ভেঙে পড়তে হয়। আমি হিসেব করে দেখছি প্রতি বোতল পানিতে খরচ হয় হাইস্ট পাঁচ টাকা, তো প্রথমে বিএসটাই এর অনুমোদনটা নিয়ে তারপর আমার এলাকায় শুরু করবো। এইখানে ‘হিউম্যান ল্যাব বিডি’র সিস্টেমটা আমার ভাল লাগছে।আমি প্রথম ছয় মাস কোম্পানীদের ওদের নিজেদেরই দাম ঠিক করতে বলবো, প্রথম ছয় মাস ওদের অনুযায়ী দামটা থাকবে, আর পানিতে লাভ হবেই। আর আমার প্রফিট আর এই মানুষের পরিচিতিই দরকার।

আমি জানি আমি যদি ভালো কিছু সাপ্লাই দেই বিজনেস চলবেই, আমি জানি। তারপরে আমার ইচ্ছা আছে একটা রাইস মিল দেয়ার, আমাদের অইদিকে প্রচুর ধান হয়। আমি অল্প টাকায় ধানটা কিনে নিয়ে চাল করে সাপ্লাই দিলাম!

খোশগল্প.কম: এখানে তোমার চালটা মানুষ কেন কিনবে?

নাহিদ: রাইসে তো নতুনত্ব আনা সম্ভব না, নতুনত্ব আনা যাবে প্যাকেজিং এ।প্রোডাক্ট প্রোডাক্টই থাকে, প্যাকেজিং ব্যবস্থাটা ভালো থাকলে অইটাকে ধরা যায়।

খোশগল্প.কম: তুমি এত আর্লি এইজে এত স্পেসিফিক প্ল্যান করে আগাচ্ছো, এত দ্রুত তোমার এইটা গ্রো করল কীভাবে? কেউ ছিল যাকে দেখে এনকারেজমেন্টটা আসছে?

নাহিদ: না, এমন কেউ ছিল না।আমার বাসায় সবাই চায় আমি চাকরি করি, বিসিএস দিই এইসব। কিন্তু আমি চাইছি স্বাধীন কিছু করতে। তো স্বাধীনভাবে করতে গেলে দেখলাম বিজনেসটাই স্বাধীন।

খোশগল্প.কম: তোমার মনে হয় না তুমি খুব আর্লি শুরু করতে পারছো?

নাহিদ: হ্যাঁ, দেরী করে সময় নষ্ট ছাড়া কি পাওয়া যাবে? এখনই শুরু না করলে পরে হতাশ হতে হবে। একটা বয়স ছিল, নাইন-টেন, ঐ বয়সটায় অনেক কিছু হইতে চাইতাম। তারপর যখন থেকে কি করব, কি হইতে চাই চিন্তা করতাম তখন মনে হইত বিজনেসটাই আমার জন্য পারফেক্ট। আমার মনে হয় আমি চাকরি করতে পারবো না, পাংচুয়ালিটি এক জিনিস আর অধীনে থাকা আরেক জিনিস। বড়জোর কিছুদিন করে আমি এক্সপেরিয়েন্স নিতে পারবো, কিন্তু প্রফেশন হিসেবে নিতে পারবো না।

খোশগল্প.কম: তোমার ইম্পোর্ট-এক্সপোর্ট নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা, এটাকে কীভাবে শুরু করবা ভাবছো?

নাহিদ: এটার জন্য নেটওয়ার্কিং দরকার, আমার তো সেটা নাই। সবার সাথে পরিচয় হবো, মানে নেটওয়ার্কিং সবচেয়ে বেশি দরকার।

খোশগল্প.কম: তোমার বিজনেসে তোমার পার্টনার হবে এমন কেউ আছে বা তুমি তোমার বিজনেস প্ল্যান ডিসকাস করো বা তোমাকে ইন্টেলেকচুয়ালি হেল্প করে?

নাহিদ: ফ্রেন্ড আছে, বলি হেল্প লাগবে, আইডিয়া শেয়ার করি। বাট ওরা এইভাবে না, আগে জব পাশাপাশি বিজনেস এমন; টার্গেটেড না। আমিই শুধু বিজনেস করতে চাই।

খোশগল্প.কম: আর পড়ালেখাটা নিয়ে কি করবা?

নাহিদ: পড়ালেখা করতে থাকবো। অনার্সে ভর্তি হয়ে ভালো হইছে। আগে তো গৎ বাঁধা নিয়মের মধ্যে থাকতাম, তখন কিছু করতে পারতাম না। এখন এসে আমার একটু স্পেস আছে, আমি আমার রেসপন্সিবিলিটি গুলা নিয়ে চিন্তা করতে পারি। আর এই স্টেজে এসে দেখলাম এক এক জন মানুষ কত ভিণ্ন ভিণ্নভাবে ভাবে, ভাল লাগে।

খোশগল্প.কম: তোমার কী মনে হয় তোমার উদ্যোগ পুরোপুরি দাঁড়িয়ে যেতে কতদিন সময় লাগবে?

নাহিদ: আমার বিশ্বাস আমি ৫-৬ বছরের মধ্যে ইম্পোর্ট-এক্সপোর্ট শুরু করতে পারবো, ততদিনে আমার যোগাযোগটা হয়ে যাবে।এর বেশী সময় লাগবে না।

খোশগল্প.কম: তোমাকে ধন্যবাদ এতক্ষণ সময় দেয়ার জন্য।

Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Pin on Pinterest0

মতামত